অলটারনারিয়ায় আক্রান্ত গাছে রোভরাল ৫০ ডবি্লউপি ১ লিটার পানিতে ২ গ্রাম হারে মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে
তোফায়েল আহমেদকৃষিজমি, বাড়ির আঙিনা, ছাদে ও বারান্দায় ফুলের বাগান করে আর্থিকভাবে লাভবান হওয়া সম্ভব। কিন্তু ফুল উৎপাদনে রোগবালাই একটি প্রধান প্রতিবন্ধক। পাইডারি মিলডিউ : স্টেম্ফরোথেকা এসপি এবং ইরিসাইফি এসপি নামক ছত্রাকের কারণে গোলাপ, চন্দ্রমলি্লকা, ডালিয়া, জিনিয়া, দোপাটি, ক্লক্স, লার্কস্পার, লুপিন, সুইট-পি ইত্যাদি গাছ এ রোগে আক্রান্ত হয়। আক্রান্ত গাছের পাতার নিচে, ডাঁটায়, কচি ফুল ও কলিতে সাদা রঙের পাউডারের মতো প্রলেপ দেখা যায়। এ রোগ দেখা দিলে গাছে সালফারের গুঁড়া ছিটিয়ে দিতে হবে। থিওভিট [০.২ শতাংশ] স্প্রে করতে হবে। মোজাইক/পাতা কোঁকড়ানো : জিনিয়া, চন্দ্রমলি্লকা, ডালিয়া প্রভৃতি গাছে এ রোগ হয়ে থাকে। এ রোগে পাতা কুঁকড়ে যায় এবং পাতায় হলুদ-সবুজের মিশ্রণের মতো মোজাইকের সৃষ্টি হয়। আক্রান্ত গাছের ফুল ছোট হয়। আক্রান্ত গাছ তুলে পুড়ে ফেলতে হবে। পোকা দমনের জন্য ম্যালাথিয়ন এক লিটার পানিতে দুই মিলি করে মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে।গোড়া ও মূল পচা : ফিউজারিয়াম ও স্ক্লেরোসিয়াম নামক ছত্রাকের কারণে গোলাপ গাছসহ গাঁদা, রজনীগন্ধা, গ্গ্নাডিওলাস ইত্যাদি গাছে এ রোগ হয়। আক্রান্ত গাছের গোড়ায় কালো দাগ দেখা দেয় ও গোড়া পচে যায়। পচা স্থানে সাদা মাইসেলিয়া এবং স্ক্লেরোসিয়া দেখা যায়। এ রোগ প্রতিরোধে সুনিষ্কাশিত উঁচু বীজতলা তৈরি করতে হবে। বীজ বপনের দুই সপ্তাহ আগে ফরমালডিহাইড দিয়ে বীজতলা শোধন করতে হবে। ট্রাইগোডারমা ভিটাভেক্স-২০০ [প্রতি কেজিতে ২.৫ গ্রাম] দিয়ে শোধন করে বীজ বপন করতে হবে। আক্রান্ত গাছের গোড়ায় পানি প্রয়োগ করা যাবে না। রোগাক্রান্ত গাছের গোড়ায় ব্যাভিস্টিন প্রতি লিটার পানিতে ১.৫ গ্রাম হারে মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে। ঢলেপড়া : গাঁদা, ডালিয়া, কারনেশন, লার্কস্পার, অ্যাস্টিটার, সুইট-পি, স্টক প্রভৃতি মৌসুমি ফুলগাছে এই রোগ আক্রান্ত হয়। পিথিয়াম নামক ছত্রাকের কারণে এ রোগ আক্রান্ত করে। আক্রান্ত গাছের পাতা শুকিয়ে যায়, ঢলে পড়ে এবং মরে যায়। রোগাক্রান্ত গাছের গোড়ায় রিদোমিল গোল্ড প্রতি লিটার পানিতে ২ গ্রাম করে মিশিয়ে গাছে স্প্রে করতে হবে। পাতা দাগ/পাতা ঝলসানো : সারস্পোরা দিয়ে গাঁদা, বাইপোলারিস ও অলটারনারিয়া দিয়ে রজনীগন্ধা, ডালিয়া এ রোগে আক্রান্ত হয়। বোট্রাইটিস দিয়ে গ্গ্নাডিওলাসের পাতায় দাগ বা ঝলসানো রোগ হয়। আক্রান্ত গাছের কচি পাতা ও ডাঁটার ওপর এক ধরনের বাদামি দাগ দেখা যায়। পরে একাধিক দাগ একত্র হয়ে পাতা ঝলসে যায়। বাইপোলারিসে আক্রান্ত গাছে টিল্ট ২৫০ এসি এক লিটার পানিতে ০.৫ মিলি হারে মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে। সারস্পোরা এবং বোট্রাইটিসে আক্রান্ত গাছে ব্যাভিস্টন ১ লিটার পানিতে ১.৫ গ্রাম হারে মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে। অলটারনারিয়ায় আক্রান্ত গাছে রোভরাল ৫০ ডবি্লউপি ১ লিটার পানিতে ২ গ্রাম হারে মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে। এভাবে গাছের যত্ন নিলে ফুল চাষে সাফল্য অর্জন করা সম্ভব।

তথ্যসূত্রঃ তোফায়েল আহমেদ, দৈনিক সমকাল (১৯/০৯/২০১০)

PrintFriendly and PDF

সর্বশেষ আপডেট : ৩১/১২/২০১৬